বাকী জীবনের জন্য কাকে আপনি সারা জীবন ধরে খুঁজছেন?

Landing page down arrow

কিভাবে আপনি জীবনসঙ্গী খুঁজবেন?

  • tick markরেজিস্টার করুন নিজের বা পরিচিতজনের জন্য
  • tick markআপনার সকল তথ্য দিন
  • tick markসবগুলো ঘর ভালোভাবে পূরণ করুন
  • tick markকার্ড বা বিকাশে পে করুন
  • tick markপাত্র/পাত্রী খুঁজুন
  • tick markসম্পূর্ণ বায়োডাটা দেখার অনুরোধ করুন
  • tick markযোগাযোগের অনুরোধ করুন
  • tick markমেসেজ পাঠান
  • tick markদেখা করুন এবং বিয়ের সিদ্ধান্ত নিন

আমাদের সেবাসমূহ

Our-Services-icon-1-logo

সপ্তাহে ৭ দিন গ্রাহক সেবা

Our-Services-icon-2-logo

বিনামূল্যে বিশেষজ্ঞ পরামর্শ

Our-Services-icon-3-logo

ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে সহযোগীতা

Our-Services-icon-4-logo

গোপনীয়তা ও বিশ্বস্ততার নিশ্চয়তা

সফল বিয়ের গল্প

আপনার প্ল্যান নির্বাচন করুন

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
প্রযোজ্য নয়
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
Cross icon
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
Cross icon
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Cross icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Cross icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Cross icon

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
১ মাস
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
ইচ্ছেমতো
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Tick icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Cross icon

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
৩ মাস
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
২৫
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
ইচ্ছেমতো
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Tick icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
৬ মাস
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
৬০
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
ইচ্ছেমতো
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Tick icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon

ব্লগ

কুরআন এর আয়াত পাঠ করে তাকে মহরানা হিসাবে ধরে বিয়ের ঘটনা

blog-image-1
বিয়ে মানেই অনেক লম্বা নিয়ম কানুন। বিয়ে করতে হলে অনেক লোকজন সাথে নিয়ে গিয়ে মেয়ে দেখতে হবে। মাহরাম বা গায়রে মাহরাম এর কোন বাছ বিচার না করে মেয়েকে সবার সামনে দেখতে হবে। তারপর যৌতুক এবং মহরনা নিয়ে লম্বা আলোচনা হবে। এরপর কয়েকবার দেখা সাক্ষাৎ ও আলোচনার পর অনেক বড় আকারে খরচ করতে হবে ইত্যাদি। অথচ ইসলাম বিয়েকে এত সহজ করে দিয়েছিল যে মুহুর্তের মধ্যে বিয়ে হয়ে যেত। বর্তমানে বিয়ে কঠিন হচ্ছে ফলে জিনা, ব্যভিচার বেড়ে যাচ্ছে। আমরা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর যুগের একটি সহজ মহরানা আদায়ের মাধ্যমে অর্থাৎ কুরআনের আয়াত কে মহরানা হিসাবে নিয়ে একটি বিয়ের ঘটনা আলোচনা করা হলঃ সাহল (রাঃ) হতে বর্ণিত যে, একজন মহিলা এসে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর কাছে নিজেকে পেশ করলেন। এক ব্যক্তি বলল, হে আল্লাহর রাসূল! তাকে আমার সঙ্গে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ করিয়ে দিন। তখন নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তোমার কাছে কী আছে? সে উত্তর দিল, আমার কাছে কিছুই নেই। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, যাও, তালাশ কর, কোন কিছু পাও কিনা? দেখ যদি একটি লোহার আংটিও পাও। লোকটি চলে গেল এবং ফিরে এসে বলল, কিছুই পেলাম না এমনকি একটি লোহার আংটিও না; কিন্তু আমার এ তহবন্দখানা আছে। এর অর্ধেকাংশ তার জন্য। অতএব নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তোমার তহবন্দ দিয়ে সে কী করবে? যদি তুমি এটা পরিধান কর, মহিলার শরীরে কিছুই থাকবে না, আর যদি এটা সে পরে তবে তোমার শরীরে কিছুই থাকবে না। এরপর লোকটি অনেকক্ষণ বসে রইল। এরপর নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাকে চলে যেতে দেখে ডাকলেন বা তাকে ডাকানো হল এবং বললেন, তুমি কুরআন কতটুকু জান? সে বলল, আমার অমুক অমুক সূরা মুখস্থ আছে এবং সে সূরা গুলোর নাম উল্লেখ করল। তখন নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, তুমি যে পরিমাণ কুরআন জান, তার বিনিময়ে তোমাকে এর সঙ্গে বিয়ে দিলাম। বর্তমান যামানায় বিয়ের ক্ষেত্রে এসব সুন্নাহ চালু করার জন্য আমাদের খুব চেষ্টা করা উচিৎ। আমরা যে যেখানে থাকি সেখান থেকেই এসব সহজ বিয়ের নিয়মকে মানার এবং সমাজে প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করি। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আমাদেরকে এসব সুন্নাহ মেনে চলার দান করুন। তাওহীদ প্রকাশনী- ৫১১৩ নং হাদিস

বিয়ে ও মানব জীবন (৬ষ্ঠ খণ্ড)

blog-image-2
আবূ হুরাইরাহ (রাঃ) হতে বর্ণিত। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, চারটি বিষয়ের প্রতি লক্ষ্য রেখে মেয়েদেরকে বিয়ে করা হয় তার সম্পদ, তার বংশমর্যাদা, তার সৌন্দর্য ও তার দ্বীনদারী। সুতরাং তুমি দ্বীনদারীকেই প্রাধান্য দেবে নতুবা তুমি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। অতএব এই হাদিস থেকে আমরা বুঝতে পারলাম যে সব কারনে একজন  পুরুষ বিশেষ একটি মেয়েকে স্ত্রী রুপে বরণ করার জন্য উৎসাহিত ও আগ্রহান্বিত হতে পারে তা হচ্ছে –  সম্পদ, বংশমর্যাদা, সৌন্দর্য এবং দ্বীনদারী। সম্পদ, সৌন্দর্য আর বংশ মর্যাদার চাইতে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে দ্বীনদারীর বিষয়টি। কারন এই গুনটিই ইসলামে সর্বাগ্রগন্য ও সর্বাধিক গুরুত্বপুর্ন। আমাদের নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এই বিষষয়টিকে প্রাধান্য দিতে বলেছেন। শুধু তাই নয় রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম) দ্বীনদারীর বিষয়টি নিয়ে বলেছেন যে যদি প্রাধান্য না দেই তবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যাবো। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আমাদেরকে বিয়ের ক্ষেত্রে  এসব সুন্নাহ মেনে চলার তৌফিক দান করুন।