খুঁজুন। বিয়ে করুন। ভালবাসুন। আজীবন।

Landing page down arrow

কিভাবে আপনি জীবনসঙ্গী খুঁজবেন?

  • tick markরেজিস্টার করুন নিজের বা পরিচিতজনের জন্য
  • tick markআপনার সকল তথ্য দিন
  • tick markসবগুলো ঘর ভালোভাবে পূরণ করুন
  • tick markকার্ড বা বিকাশে পে করুন
  • tick markপাত্র/পাত্রী খুঁজুন
  • tick markসম্পূর্ণ বায়োডাটা দেখার অনুরোধ করুন
  • tick markযোগাযোগের অনুরোধ করুন
  • tick markমেসেজ পাঠান
  • tick markদেখা করুন এবং বিয়ের সিদ্ধান্ত নিন

আমাদের সেবাসমূহ

Our-Services-icon-1-logo

সপ্তাহে ৭ দিন গ্রাহক সেবা

আমরা সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৬ টা পর্যন্ত গ্রাহক সেবা দিয়ে থাকি। আমাদের সাথে আপনারা ইমেইল, ফোন অথবা ফেসবুক মেসেঞ্জারের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারেন। আমরা চেষ্টা করি সকল সমস্যার সহজ এবং দ্রুত সমাধান করতে।

Our-Services-icon-2-logo

বিশেষ পরামর্শ

আমরা গ্রাহকদের আরও সুন্দরভাবে কিভাবে প্রোফাইলটি উপস্থাপন করতে পারে সে ব্যাপারে পরামর্শ দিয়ে থাকি। প্রিমিয়াম গ্রাহকদের চাহিদা সাপেক্ষে তাদের পছন্দের পাত্র বা পাত্রী খুঁজতে সাহায্য করে থাকি।

Our-Services-icon-3-logo

ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে সহযোগীতা

আমাদের ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে গ্রাহক আমাদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারবেন। যেকোনো ধরণের সমস্যা অথবা যেকোনো ধরনের প্রশ্নের উত্তর আমরা দিয়ে থাকি। এছাড়াও আমরা ফেসবুক পেইজে কিছু পাত্র বা পাত্রীর নিজের সম্পর্কে কিছু কথা পোস্ট করে থাকি।

Our-Services-icon-4-logo

গোপনীয়তা ও বিশ্বস্ততার নিশ্চয়তা

আপনার অনুমতি ছাড়া ছবি, আসল নাম ও পূর্ণ প্রোফাইল কেউ দেখতে পারবে না। দুই ধাপে অনুমতি দেয়ার পরে গ্রাহক আপনার যোগাযোগের তথ্য পাবে। আমরা প্রত্যেকের মোবাইল নম্বর ভেরিফাই করি। আপনার অভিযোগ বা সন্দেহজনক তথ্য পেলে নিয়ম অনুযায়ী পদক্ষেপ নেই।

সফল বিয়ের গল্প

আপনার প্ল্যান নির্বাচন করুন

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
প্রযোজ্য নয়
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
Cross icon
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
Cross icon
বায়োডাটা ডাউনলোড
Cross icon
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Cross icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Cross icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Cross icon

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
২ মাস
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
২৫
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
ইচ্ছেমতো
বায়োডাটা ডাউনলোড
Tick icon
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Tick icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
৬ মাস
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
৬০
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
ইচ্ছেমতো
বায়োডাটা ডাউনলোড
Tick icon
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Tick icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
৯ মাস
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
১০০
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
ইচ্ছেমতো
বায়োডাটা ডাউনলোড
Tick icon
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Tick icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon
* অফার ৩১ জানুয়ারি ২০২২ পর্যন্ত চলবে

ব্লগ

বিয়েটা ডটকম বনাম ঘটক

blog-image-1
বিয়ের খুব জনপ্রিয় এবং প্রাচীন প্রদ্ধতি হল ঘটকের দ্বারা বিয়ের জন্য পাত্র-পাত্রীর সন্ধান করা। ঘটক সাহেবের কাছে একসময় মানুষ তাদের সন্তানের জন্য কখনও নিজের বিয়ের জন্য পাত্র/ পাত্রীর দারস্থ হতেন। ঘটক সাহেবরা এই মহান কাজকে মহান আল্লাহর সন্তুষ্টির আশায় আনন্দের সাথে করতেন। বিয়ে সংঘটিত হলে বর পক্ষ বা কনে পক্ষ কখনো উভয় পক্ষ ঘটক সাহেবকে সম্মানিত করতেন। বিয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ ফজিলতপূর্ণ কাজ, আর এই কাজে মহান আল্লাহ সন্তুস্টি হন- তাই এই কাজকে ঘটকেরা আনন্দের সাথে পেশা হিসাবে গ্রহণ করেন। তাঁরা মহান আল্লাহকে ভয় করে উভয় পক্ষের তথ্য যা প্রকাশ করা উচিৎ তা জানিয়ে বিয়ের ব্যাপারে উৎসাহ দিতেন। বিনিময়ে খুব সামান্য কিছু পেলেই সন্তুস্ট হয়ে যেতেন, যেহেতু তাঁরা আল্লাহর কাছে পুরস্কারের আশা করতেন। এরপরে ঘটকদের সাথে মানুষের দূরত্ব বাড়তে থাকে। নিজেরাই নিজেদের বিয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়ার প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। অন্যদিকে পরিবারের লোকজন যারা ঘটকের কাজ করতেন তারা বিয়ে পরবর্তী বিভিন্ন অবস্থার কারণে আর বিয়ের ব্যাপারে ঝুঁকি কম নিতে থাকে। মানুষের মধ্যে ব্যস্ততা বাড়তে থাকে, ফলে একই পরিবারের একজনের বিয়ের জন্য অন্যরা সময় বের করতে চান না বা গুরুত্ব দিতে চান না। ফলে ঘটকের সংখ্যা কমতে থাকে।   কেন বিয়েটা ডটকমের সৃষ্টি হল? বর্তমানে আমরা প্রতিদিন প্রায় প্রতি মুহুর্তে অনলাইন নির্ভর হয়ে যাচ্ছি। আমাদের প্রতিদিনের কাজের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে যাচ্ছে এই অনলাইন। পত্রিকা দেখা, আবহাওয়ার পুর্বাভাস, বিদ্যুৎ বিল সহ বহু প্রকার বিল প্রদান, পরস্পর যোগাযোগ, লেনদেন, ডকুমেন্টস আদান প্রদান, রাস্তায় বেরিয়ে গাড়ির সন্ধান, ঘরে বাসা বাজার করা, অফিসের কাজ করা ইত্যাদি কারণে আমরা অনলাইন নির্ভর হয়ে যাচ্ছি।   বিয়ের মত একটি গুরুত্বপপূর্ণ বিষয় কেন বাদ যাবে অনলাইন থেকে। আমাদের বাংলাদেশে এই ধারনা নতুন হলেও ইউরোপ, আমেরিকা এমনকি পাশের দেশ ভারতেও কিন্তু অনলাইনে পাত্র-পাত্রী খোঁজার প্রচলন নতুন নয়।   অল্প টাকায় অল্প সময়ে সঠিক পাত্র-পাত্রী যাতে মানুষ খুঁজে পেতে পারে, মানুষ ধোঁকা থেকে বাঁচতে পারে, নিজের পছন্দের মানুষকে নিজেই খুঁজে নিতে পারে, ব্যস্ততার ফাঁকে কারও উপর নির্ভরশীল না হয়ে।  নিজের আত্মীয়  স্বজনদের কাছে ধরনা না দিয়েও যাতে নিজের সন্তানের জন্য বা ভাই-বোনের জন্য সঠিক মানুষকে খুঁজে পেতে পারেন—এসব ধারনা থেকে বিয়েটা ডট কমের সৃষ্টি হয়েছে। বিয়েটা ডট কমের সাথে ঘটকদের পার্থক্য- (১) খোঁজ করাঃ বিয়েটা ডট কমে নিজের পছন্দের মানুষকে নিজেই খুঁজে নিতে হয়। অন্যদিকে ঘটক সাহেব খুঁজে দেন, পাত্র-পাত্রীরা শুধু বাছাই করেন।  (২) পাত্র-পাত্রীর সংখ্যাঃ  নিজের পছন্দের সাথে মিল রেখে শত শত পাত্র-পাত্রীর সিভি দেখা সম্ভব বিয়েটা ডট কমে। অন্যদিকে ঘটক সাহেবের কাছে এই এই সংখ্যা তুলনামুলক কম থাকে। (৩) মিলঃ বিয়েটা ডট কমে রয়েছে বায়ো-ডাটা এবং পছন্দের সাথে মিল রেখে একে অপরের তথ্য দেখার সহজ সুযোগ। মুহূর্তের মধ্যে শত-শত পাত্র-পাত্রীর সাথে নিজেকে মিলানোর সুযোগ। ঘটক সাহেবও এই ব্যাপারে সাহায্য করতে পারবেন কিন্তু মুহূর্তের মধ্যে শত-শত বায়োডাটার মধ্যে বাছাই সম্ভব নয়।  (৪) যোগাযোগের মাধ্যমঃ পছন্দ হলেই প্ল্যান আপগ্রেড করে অনুরোধ সরাসরি পাঠানো যায় বিয়েটা ডট কমের মাধ্যমে। আর উভয়ের পছন্দ হলেই ফোন নাম্বার ও ঠিকানা মেসেজ পাঠানোর সুযোগ রয়েছে। আর বিয়েও চুপিচুপি করা সম্ভব অর্থাৎ বিয়ের খবর বিয়েটা ডট কমে না জানালে কেউ জানতে পারবেনা। ঘটক সাহেবের সাহায্য ছাড়া বা অনুমতি ছাড়া যোগাযোগের কোন মাধ্যম পাওয়া সাধারণত সম্ভব না। হলেও বিয়ে সম্ভব না।  (৫) খরচঃ বিয়েটাতে সর্বচ্চ প্লানের দাম ৮ হাজার টাকা, ৯ মাস মেয়াদ, ১০০ জনকে যোগাযোগের অনুরোধ পাঠানো সম্ভব। মানে অব্যার্থ প্ল্যান। আর কেউ আপনাকে পছন্দ করলে টাকা-পয়সা একটাও খরচ না করেই বিয়ে সম্ভব। ঘটক সাহেবদের মধ্যে অনেক প্রকার আছেন। তবে যারা পেশাদার তাদেরকেও একটি নির্দিস্ট খরচ শুরুতেও দিতে হয় এবং বিয়ে হলে শেষেও দিতে হয়। আর তার পরিমাণ বিভিন্ন প্রকার হতে পারে।  তবে ১৫ হাজার থেকে শুরু করে লাখ পর্যন্তও হতে পারে।   (৬) প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা কতটুকঃ বিয়েটাতে কাউকে অনুরোধ পাঠাতে সর্বোচ্চ ১০০ টাকা খরচ হতে পারে।যোগাযোগের অনুরোধ গৃহীত হলেই এই টাকা কাটা হবে। নাহলে হবেনা। আর এরপরে ফোন নাম্বার- ঠিকানায় খোঁজ  নিয়ে তথ্য ভুল মনে হলে ফিরে আসতে হবে। আর এতে প্রতারিত হওয়ার সম্ভাবনা ঐ সর্বোচ্চ  ১০০ টাকাই।কারণ বিয়েটা থেকে কেউ আপনাকে প্রেসার দিয়ে বিয়ে দেওয়ার চেস্টা করবেনা। ঘটক সাহেব জানেন বিয়ে না দিতে পারলে তার ক্ষতি। বিয়ে দিতে পারলেই কিছু পাওয়া যাবে। তাই তারা  সাধারণত (অনেকের অভিজ্ঞতা অনুযায়ী জানতে পেরেছি) একটু তাড়াতাড়ি এই কাজ সারতে চান। আর এতে বড় ক্ষতি হল, সব কিছু ঠিক না থাকলেও অনেকে সংসার চালিয়ে যান কিন্তু কেউ কেউ আর না পেরে বিকল্প পথ দেখেন।   ঘটক আপনার দায়িত্ব নিবে ফলে উনাদের কস্ট অনেক বেশি হয়। তাই পারিশ্রমিক একটু বেশি হতেই পারে। কিন্তু বিয়েটা ডট কমও আপনার দায়িত্ব নিচ্ছে তবে আপনাকে সামনে রেখে, স্বাধীনতা দিয়ে।  

বিয়েটা হেল্পলাইন

blog-image-2
বিয়েটা ডট কমে রেজিস্ট্রেশন এর পরে সাধারণত নিজেই নিজের পছন্দের মানুষকে প্ল্যান আপগ্রেড করে অনুরোধ পাঠাতে হয়। আর অপর পক্ষ যখন নিজেই সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রোফাইল দেখে প্রথম অনুরোধটি অর্থাৎ বায়ো-ডাটা দেখার অনুরোধ গ্রহণ করে তখন যোগাযোগের অনুরোধ পাঠাতে হয়। আর যোগাযোগের অনুরোধ পাঠানোর পরে ৭ দিনের মধ্যে অপর পক্ষ যদি অনুরোধটি গ্রহণ করে তাহলে ফোন নাম্বার, ঠিকানা এবং মেসেজ পাঠানোর অনুমোদন পাওয়া যায়।  এরপরে মোবাইলে কথা বলা, ঠিকানাতে খোঁজ খবর নেওয়া এবং মেসেজ পাঠানোর সুযোগ পাওয়া যায়। এখন নিজের কথাগুলো মন খুলে বলে বা মেসেজ পাঠিয়ে জানিয়ে আপনার পছন্দের মানুষকে বুঝানোর চেস্টা করতে হবে নিজের অবস্থান। উভয়ের পছন্দ হলে বিয়ে হবে। বিয়েটা ডট কমের হেল্পালাইনের কাজ কি? কিভাবে হেল্প পাবেন বা বিয়েটা ডট কমের হেল্পলাইন কতটুক সাহায্য করতে পারবে ইত্যাদি জানা যাবে একটু নিচের লিখাটুক পড়লেই। অনেকে মনে করেন যে বিয়েটা ডট কমে রেজিস্ট্রেশন করেছি এখন মনে হয়ে বিয়েটা ডট কম থেকে একজন তার মনের মত মানুষকে মিলেয়ে দিবে বা ফোন দিয়ে হেল্পালাইন থেকে জানাবে। আর উনি কিছু টাকা বিয়েটা ডট কমকে পেমেন্ট করে বিয়ে করে ফেলবেন। আবার কেউ মনে করে সে একটি প্ল্যান আপগ্রেড করেছে এখন দায়িত্ব শেষ। এখন বিয়েটা থেকে তাকে পছন্দের মানুষ খুঁজে দিবে। আসলে ব্যাপারটা এই রকম না।    বিয়েটা হেল্পলাইন থেকে যে সেবা পাবেন- ১। প্রোফাইল চেক করাঃ প্রোফাইল সুন্দর করে দেওয়া অর্থাৎ প্রোফাইল অসমাঞ্জস্য কিছু থাকলে সংশোধন করে দেওয়া। অর্থাৎ প্রোফাইল কমপ্লিট করার পরে কোন ভুল থাকলে ঠিক করে দেওয়া হেল্পলাইনের দায়িত্ব। ২। সতর্ক করাঃ ফোন নাম্বার, ঠিকানা ইত্যাদি কোন যোগাযোগের তথ্য অনিয়মিতভাবে দিলে তাকে সতর্ক করা। সতর্ক না মানলে বা ফোন রিসিভ না করলে বন্ধ করে দেওয়া। ৩। প্রোফাইল বন্ধ করাঃ  ফোন করে ইউজারদের সাথে কথা বলে তথ্য সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়ার চেস্টা করা। সন্দেহ হলে প্রোফাইল বন্ধ করে দেওয়া। ৬ টি ক্যাটাগরিতে একটা প্রোফাইল বন্ধ করে দেওয়া হয়।  ৪। অভিনন্দন মেইলঃ কথা বলে নিশ্চিত হওয়ার পরে অভিনন্দন পত্র পাঠানো এবং কিছু নির্দেশনা দেওয়া যাতে সহজেই বিয়ের জন্য সফল হতে পারে। ৫। ফোন রিসিভ করে সাহায্য করাঃ প্রতিদিন সকাল ১০ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত সরাসরি বিয়েটা’র হেল্পলাইন থেকে এডমিনদের সাহায্য এবং তথ্য পাওয়া যায়। কোন কারনে ফোন রিসিভ করতে দেরি হলে কল ব্যাক নিশ্চিত। বিয়েটার হেল্পলাইনঃ ০১৭৫৫-৬৯০০০০/ ০১৭৩০-৩৩২৫০৩/ ০৯৬৬৬-৭৭৮৭৭৯। ৬। মেইল রিপ্লাইঃ বিয়েটার মেইলে যেকোন সময় মেইল করতে পারেন। biyeta@nascenia.com -আপনার মেইল এর রিপ্লাই পেতে দেরী হলে হতাশ হবেননা। দ্রুত মেইল এর রিপ্লাই দেওয়ার চেস্টা করা হয় বিয়েটা হেল্পলাইন থেকে। ৭। ফেসবুক রেস্পোন্সঃ আপনি যদি ফেসবুক ব্যবহারে বেশি অভ্যস্থ হয়ে থাকেন তাহলে বিয়েটা-র সাহায্য পেতে আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে  পারেন এই লিংকেঃ https://www.facebook.com/biyeta  ৮। ইউজারদের হেল্পঃ আপনার পাঠানো অনুরোধ সরাসরি চলে যাবে অপর পক্ষের কাছে। এরপরেও বিয়েটা এডমিনের পক্ষ থেকে ই-মেইল যাবে। আপনারা যদি চান আপনি যাদেরকে অনুরোধ পাঠিয়েছেন তাদের সাথে এডমিনের পক্ষ থেকে কথা বলা যেতে পারে।  ৯। এডমিন এক্সিকিউটিভদের সীমাবদ্ধতাঃ বিয়েটা এডমিনের এক্সিকিউটিভ আপনার পক্ষ হয়ে কাউকে বেশি অনুরোধ করতে পারেন না। শুধু মনে করিয়ে দিতে পারেন। আর পেমেন্ট করলেই ফোন নাম্বার বা ঠিকানা দেওয়া হয়না। এগুলো পেতে নিয়ম অনুসারে এগুতে হবে। ১০। ফিডব্যাক চেক করাঃ বিয়েটা ইউজারদের ফিডব্যাক চেক করা এবং নিয়মিত সমস্যা সমাধানের চেস্টা করা বিয়েটা হেল্পলাইনের দায়িত্ব।  নিজের সমস্যার কথা নিশ্চিন্তে জানান বিয়েটার এক্সিকিউটিভদেরকে হেল্পলাইন-গুলোর মাধ্যেম।