খুঁজুন। বিয়ে করুন। ভালবাসুন। আজীবন।

Landing page down arrow

কিভাবে আপনি জীবনসঙ্গী খুঁজবেন?

  • tick markরেজিস্টার করুন নিজের বা পরিচিতজনের জন্য
  • tick markআপনার সকল তথ্য দিন
  • tick markসবগুলো ঘর ভালোভাবে পূরণ করুন
  • tick markকার্ড বা বিকাশে পে করুন
  • tick markপাত্র/পাত্রী খুঁজুন
  • tick markসম্পূর্ণ বায়োডাটা দেখার অনুরোধ করুন
  • tick markযোগাযোগের অনুরোধ করুন
  • tick markমেসেজ পাঠান
  • tick markদেখা করুন এবং বিয়ের সিদ্ধান্ত নিন

আমাদের সেবাসমূহ

Our-Services-icon-1-logo

সপ্তাহে ৭ দিন গ্রাহক সেবা

আমরা সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৬ টা পর্যন্ত গ্রাহক সেবা দিয়ে থাকি। আমাদের সাথে আপনারা ইমেইল, ফোন অথবা ফেসবুক মেসেঞ্জারের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারেন। আমরা চেষ্টা করি সকল সমস্যার সহজ এবং দ্রুত সমাধান করতে।

Our-Services-icon-2-logo

বিশেষ পরামর্শ

আমরা গ্রাহকদের আরও সুন্দরভাবে কিভাবে প্রোফাইলটি উপস্থাপন করতে পারে সে ব্যাপারে পরামর্শ দিয়ে থাকি। প্রিমিয়াম গ্রাহকদের চাহিদা সাপেক্ষে তাদের পছন্দের পাত্র বা পাত্রী খুঁজতে সাহায্য করে থাকি।

Our-Services-icon-3-logo

ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে সহযোগীতা

আমাদের ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে গ্রাহক আমাদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারবেন। যেকোনো ধরণের সমস্যা অথবা যেকোনো ধরনের প্রশ্নের উত্তর আমরা দিয়ে থাকি। এছাড়াও আমরা ফেসবুক পেইজে কিছু পাত্র বা পাত্রীর নিজের সম্পর্কে কিছু কথা পোস্ট করে থাকি।

Our-Services-icon-4-logo

গোপনীয়তা ও বিশ্বস্ততার নিশ্চয়তা

আপনার অনুমতি ছাড়া ছবি, আসল নাম ও পূর্ণ প্রোফাইল কেউ দেখতে পারবে না। দুই ধাপে অনুমতি দেয়ার পরে গ্রাহক আপনার যোগাযোগের তথ্য পাবে। আমরা প্রত্যেকের মোবাইল নম্বর ভেরিফাই করি। আপনার অভিযোগ বা সন্দেহজনক তথ্য পেলে নিয়ম অনুযায়ী পদক্ষেপ নেই।

সফল বিয়ের গল্প

আপনার প্ল্যান নির্বাচন করুন

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
প্রযোজ্য নয়
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
Cross icon
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
Cross icon
বায়োডাটা ডাউনলোড
Cross icon
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Cross icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Cross icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Cross icon

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
২ মাস
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
২৫
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
ইচ্ছেমতো
বায়োডাটা ডাউনলোড
Tick icon
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Tick icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
৫ মাস
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
৬০
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
ইচ্ছেমতো
বায়োডাটা ডাউনলোড
Tick icon
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Tick icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon

সুবিধাসমূহ

মেয়াদ
৭ মাস
শর্ট প্রোফাইল দেখুন
Tick icon
বায়োডাটার অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ
Tick icon
যোগাযোগের অনুরোধ প্রেরণ
১০০
বায়োডাটার অনুরোধ প্রেরণ
ইচ্ছেমতো
বায়োডাটা ডাউনলোড
Tick icon
সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন
Tick icon
বিশেষজ্ঞ সেবা (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon
সুপারিশ (চাহিদা সাপেক্ষে)
Tick icon
* অফার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ পর্যন্ত চলবে

ব্লগ

বিয়েটাতে অনুমতি ছাড়া নাম্বার পাওয়া যায় না

blog-image-1
বিয়েটা’তে অনুমতি ছাড়া পাত্র-পাত্রীদের নাম্বার পাওয়া যায়না, অপেক্ষা করতে হয়। অথচ অন্য একটা ওয়েবসাইটে আছে যেখানে ১০০ টাকা দিলেই একজন পাত্র-পাত্রীর নাম্বার পাওয়া যায়। এরকম একটি মন্তব্য করেছেন বিয়েটার একজন গ্রাহক। -হ্যাঁ, আমাদের ওয়েবসাইটে টাকা দিলেই বা প্ল্যান আপগ্রেড করলেই নাম্বার পাওয়া যায়না, পাত্র-পাত্রীর অনুমতি লাগে।   আপনি চিন্তা করুন ১০০ টাকা দিয়ে একজন পাত্র-পাত্রীর নাম্বার পেলেন অথচ ঐ পাত্র-পাত্রী আপনার সম্পর্কে কিছুই জানেনা। আপনি কি মনে করেন আপনার নাম্বার থেকে কল পেলেই ঐ পাত্র-পাত্রী স্বাচ্ছন্দ্যে আপনার সাথে কথা বলবে?  আমাদের ওয়েবসাইটে পাত্র-পাত্রীর কাছে প্রথমে বায়োডাটা দেখার জন্য একটি অনুরোধ পাঠাতে হয়। মনে করুন আপনি পাত্র। কোন পাত্রীর সংক্ষিপ্ত প্রোফাইল আপনার পছন্দ হল। আপনি প্ল্যান আপগ্রেড করে ঐ পাত্রীর সম্পূর্ণ প্রোফাইল দেখার জন্য অনুরোধ পাঠালেন। এরপরে পাত্রী পক্ষ আপনার প্রোফাইল দেখে পছন্দ হলে অনুরোধ গ্রহণ করবেন এবং আপনাকে সম্পূর্ণ বায়ো-ডাটা দেখার অনুমতি দিবেন।  তখন আপনি তাঁর বিস্তারিত দেখতে পারবেন এবং যোগাযোগের জন্য অনুরোধ পাঠাতে পারবেন।  এই অনুরোধ পাঠানোর পরে ৭ দিনের মধ্যে পাত্রী পক্ষ যোগাযোগের অনুরোধ গ্রহণ করলে আপনি তাদের ফোন নাম্বার, ঠিকানা, মেইল করার সুযোগ ইত্যাদি পাবেন।  বিয়েটাতে অনুমতি ছাড়া নাম্বার পাওয়া যায় না। পরস্পরের এই ফোন নাম্বার এবং ঠিকানা পাওয়ার আগেই একে অপরের বায়ো-ডাটা সম্পর্কে জেনে নেওয়ার এই সিস্টেম আপনার কাছে কি রকম মনে হয় জানাবেন।

আনোয়ার হোসেন এবং শায়লা হামিদ মৌ এর বিয়ে

blog-image-2
আনোয়ার একজন আর্কিটেক্ট, বর্তমানে ডিজাইনার এবং কো-অর্ডিনেটর হিসাবে ফরেন বায়িং হাউজে কর্মরত আছেন। বাবা কানাডা থাকেন, মা একজন প্রফেসর। সবাই ব্যস্ত। তাই নিজেই নিজের বিয়ের জন্য লাইফ পার্টনার খুঁজতে শুরু করেছিলেন।  আনোয়ার এর জন্ম  এবং বেড়ে উঠা সবকিছুই ঢাকাতেই। ঢাকার নামকরা কয়েকটা ম্যারেজ মিডিয়ার সাথে উনি যোগাযোগ করেছিলেন। তাদের নিয়ম কানুন ভাল লাগছিল, কিন্তু উনি বেশি সময় দিতে পারছিলেননা। কারণ চাকুরির কারণে ও অন্যান্য কাজের কারণে ব্যস্ত থাকতে হয়। সবশেষ একজন বন্ধুর পরামর্শে বিয়েটা ডট কমে রেজিস্ট্রেশন করলেন। কারণ বিয়েটাতে সবকিছুই নিজের হাতে এবং যেকোন জায়গা থেকে যখন খুশি অপারেট করা যায়। বিয়েটার এই সহজ এবং দ্রুত কার্যকরী নিয়ম কানুন তাঁর ভাল লাগতে শুরু করে।   রেজিস্ট্রেশন করার সাথে সাথে তাঁর পছন্দের সাথে মিল রেখে তিনি অনেক প্রোফাইল দেখতে পেলেন। আরেকটি বিষয় বিয়েটা ডট কমের উনার কাছে ভাল লেগেছে যে, কেউ টাকা পেমেন্ট করার জন্য চাপ দেয়না বা জোর করে কাউকে চাপিয়ে দেওয়ার কোন চেষ্টা নেই। আছে নিজের ইচ্ছাধীন পেমেন্ট করার ব্যবস্থা এবং পছন্দ অনুযায়ী যোগাযোগের ব্যবস্থা।   সেপ্টেম্বর-২০২০ সালে আনোয়ার রেজিস্ট্রেশন করেন বিয়েটা ডট কমে। এরপরে পাত্রী পক্ষ থেকে কয়েকটা অনুরোধ আসে। তিনি বুঝে শুনে কয়েকটি অনুরোধ গ্রহণ করেন এবং কথাবার্তা শুরু করেন। কিন্তু তেমন একটা আগ্রহ অনুভব করলেন না। অপেক্ষা করতে থাকেন প্রিয় মানুষটির জন্য। ডিসেম্বর-২০২০ সালে উনি বিয়েটা ডট কম থেকে একটি প্ল্যান কিনে অনুরোধ পাঠানো শুরু করলেন।      অন্যদিকে কাজী শায়লা হামিদ মৌ—তিনিও একজন মনের মত মানুষ খুঁজছিলেন বিয়ের জন্য। আর তাই বিয়েটা ডট কমে ২০১৮ সালের অক্টোবর মাসে রেজিস্ট্রেশন করেছিলেন। এরপরে অনেকেই অনুরোধ পাঠিয়েছিলেন উনাকে। কিন্তু মিল হচ্ছিল না। ডিসেম্বর-২০২০ সালের ৩০ তারিখে আনোয়ার এর কাছে থেকে অনুরোধ আসে।    আনোয়ার এর শিক্ষাগত যোগ্যতা, পেশা, উচ্চতা, বয়স, পারিবারিক অবস্থা সবকিছুই মিলে যাচ্ছিল মৌ এর পছন্দের সাথে। মৌ তাই আনোয়ার হোসেন এর অনুরোধটি গ্রহণ করেন। এরপরে শুরু হয় কথাবার্তা। দুইজনেই ব্যস্ত অর্থাৎ চাকুরিজীবী, তাই ফোনে মাঝে মাঝে কথা হত কিন্তু দেখা হওয়ার সুযোগ ছিল না। কিন্তু দুইজনের কথা বার্তার মাধ্যমে ভাল বোঝাপড়া শুরু হয়ে গেল। এভাবে একে অপরের প্রতি ভালো লাগা এবং সম্মানবোধ সৃষ্টি হওয়াতে দুইজনেই সরাসরি দেখা করার সিদ্ধান্ত নিলেন।  ঢাকায় একটি রেস্টুরেন্ট দুইজনের দেওয়া সময় অনুযায়ী দেখা করার ব্যবস্থা হল। যাইহোক, দুইজনের দেখা হলে পরস্পরের দেওয়া তথ্য আরো সঠিক প্রমানিত হল। এভাবে আর এক বার দেখা-সাক্ষাতের পরে পরস্পরের অভিভাবককে জানানো হলো।    অভিভাবকরা আরো চিন্তা-ভাবনা করতে বললেন, খোঁজ-খবর নেওয়ার পরামর্শ দিলেন। সবশেষে, বিয়ের আয়োজন করা হল।   তাঁরা এখন বিবাহিত দম্পত্তি। সুখেই আছেন বলে জানিয়েছেন আমাদেরকে। আমাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিয়ে হওয়াতে আমাদেরকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।     আনোয়ারের বিয়েটা সম্পর্কে বক্তব্যঃ “I am thankful to Biyeta as I found my life partner through this site”