বিবাহ বিচ্ছেদ ও বাংলাদেশে বিদ্যমান আইন (পর্ব ১)

বিবাহ বিচ্ছেদ বলতে বিবাহ চুক্তির সমাপ্তি বুঝায়। ডিভোর্স বা বিবাহ বিচ্ছেদ হচ্ছে দম্পতির সর্বশেষ পন্থা যখন আর কোন মতেই একসাথে থাকা তাদের পক্ষে সম্ভব হয় না। এ সম্পর্কে আল্লাহ্‌র নবী (সাঃ) বলেন, “ইসলামের নিকৃষ্ট হালাল বস্তু হল তালাক”- (আল- হাদিস)। ইসলাম কখনই সম্পর্ক ছিন্ন করা সমর্থন করে না। মহান আল্লাহ্‌ এজন্যে তালাককে সর্বশেষ উপায় হিসাবে উল্লেখ করেছেন এবং সময় ও সুযোগ দিয়েছেন এই সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করার। বাংলাদেশে বিয়ে এবং বিবাহ বিচ্ছেদ নিয়ে কতগুলো আইন আছে এর মধ্যে অন্যতম হল- বিয়ে ও তালাক রেজিস্ট্রেশন আইন ১৯৭৪ এবং মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ ১৯৬১। এই সবগুলো আইন-ই ইসলামী শরিয়াহ মোতাবেক গঠিত এবং পরিচালিত। বিবাহ বিচ্ছেদ মুলতঃ দুই ভাবে হয়ে থাকে- ১) কোন পক্ষের মৃত্যু হলে ২) যে কোনো এক পক্ষের পদক্ষেপের মাধ্যমে। পদক্ষেপ আবার ৩ ভাবে হতে পারে- ক) স্বামী খ) স্ত্রী গ) পারস্পরিক সমঝোতা।

এর বিস্তারিত জানার আগে আমাদের কিছু বিষয় সম্পর্কে জানা প্রয়োজন:

ইদ্দতকাল:

ইদ্দত অর্থ হচ্ছে গণনা অথবা অপেক্ষা করা। তালাকের পর অথবা স্বামীর মৃত্যুর পর পুনরায় বিয়ের প্রস্তাব আদান প্রদানের জন্য মহিলাদের যতদিন অপেক্ষা করা লাগবে সেটাই আসলে ইদ্দতকাল। আল্লাহ্‌ তায়ালা ইদ্দতকাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে বলেছেন যাতে স্ত্রী বুঝতে পারে যে সে গর্ভাবস্থায় আছে কিনা। ইদ্দতকাল অবস্থা অনুযায়ী বিভিন্ন হয়ে থাকে। কোরআন মোতাবেক স্বামীর মৃত্যু হলে স্ত্রীকে ৪ মাস ১০ দিন ইদ্দতকাল পালন করতে হব। ডিভোর্সের ক্ষেত্রে মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ ১৯৬১ অনুযায়ী স্বামীর প্রথম তালাক ঘোষণার পর ৯০ দিন এবং কোরআন মোতাবেক ৩ টি পিরিয়ডকালীন (ঋতুস্রাব) সময় হচ্ছে ইদ্দতকাল যা অতিক্রম হওয়ার পর ডিভোর্স কার্যকর হবে। এ সম্পর্কে আল্লাহ তালাহ কোরআনে বলেছেন,

হে নবী, তোমরা যখন স্ত্রীদেরকে তালাক দিতে চাও, তখন তাদেরকে তালাক দিয়ো ইদ্দতের প্রতি লক্ষ্য রেখে এবং ইদ্দত গণনা করোতোমরা তোমাদের পালনকর্তা আল্লাহকে ভয় করোতাদেরকে তাদের গৃহ থেকে বহিস্কার করো না এবং তারাও যেন বের না হয় যদি না তারা কোন সুস্পষ্ট নির্লজ্জ কাজে লিপ্ত হয়এগুলো আল্লাহর নির্ধারিত সীমাযে ব্যক্তি আল্লাহর সীমা লঙ্ঘন করে, সে নিজের-ই অনিষ্ট করেসে জানে না, হয়তো আল্লাহ এই তালাকের পর কোন নতুন উপায় করে দেবেন। (সূরা আত-তালাক: ১)

তুহুর:

মেয়েদের পিরিয়ডের পরবর্তী পবিত্রকালীন সময়কে তুহুর বলে। এর সময়সীমা প্রথম পিরিয়ড শেষ হওয়ার পর থেকে দ্বিতীয় পিরিয়ড শুরু হওয়ার আগ মুহূর্ত পর্যন্ত থাকে।

আমরা এখানে আলোচনা করবো ৩টি পদক্ষেপ নিয়ে বাংলাদেশে বিদ্যমান আইন এবং ইসলামে এই সম্পর্কিত বাধা-নিষেধ।

বাংলাদেশে ডিভোর্সের বিদ্যমান আইন

কারো স্ত্রী যদি মৃত্যুবরণ করে তবে সে পুনরায় বিয়ে করতে পারবে, কোন সময় পর্যন্ত তার অপেক্ষা করার প্রয়োজন নেই। যদি কারো স্বামী মারা যায় তবে স্ত্রীকে ইদ্দতকাল পর্যন্ত অপেক্ষা করা লাগবে। আইন অনুযায়ী এই ইদ্দতকাল হচ্ছে ৪ মাস ১০ দিন। সে আসলে গর্ভবতী কিনা তা নিরূপণ করার জন্য এই সময়টুকু প্রয়োজন। গর্ভবতী হলে সন্তান জন্মগ্রহণের পর দ্বিতীয় বিয়ে করতে পারবে। যদি স্ত্রী এবং স্বামীর দাম্পত্য জীবন পূর্ণতা পাবার আগেই স্বামী মারা যায় তবে বাংলাদেশ আইন অনুযায়ী এই ইদ্দতকাল পর্যন্ত অপেক্ষা করা লাগে না।

তালাকদাতার অবশ্যই প্রাপ্ত বয়স্ক এবং সুস্থ মস্তিষ্কের হতে হবে। নাবালক ও সুস্থ মস্তিষ্কের নয় এমন কেউ অথবা তার পক্ষে তার পরিবারের কেউ ডিভোর্স দিতে পারবে না। এটি হচ্ছে ডিভোর্সের পূর্বশর্ত।   

বাংলাদেশে বিদ্যমান মুসলিম পারিবারিক অধ্যাদেশ ১৯৬১ অনুযায়ী স্বামী ও স্ত্রী যে কেউই ডিভোর্স দিতে পারে। যেকোন পদ্ধতিতেই ডিভোর্স দিলে বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী ৩ টি ধাপে তারা তাদের বিবাহের নিষ্পত্তি করতে হবে-

১। লিখিত নোটিশ পাঠাতে হবে

২। সালিশি পরিষদে অংশগ্রহন করতে হবে

৩। ৯০ দিন অতিক্রম হওয়ার পর রেজিস্ট্রারের নিকট হতে ডিভোর্স রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেট নিতে হবে

আমাদের দেশে বিয়ের রেজিস্ট্রেশন করা বাধ্যতামূলক তবে ডিভোর্স রেজিস্ট্রেশন করা বাধ্যতামূলক নয়। মুসলিম পারিবারিক অধ্যাদেশ ১৯৬১ অনুযায়ী লিখিত নোটিশ পাঠাতে হবে। এই নোটিশ আইন অনুযায়ী বাধ্যতামূলক এবং না পাঠালে আইনে শাস্তির বিধান রয়েছে। মুসলিম পারিবারিক আইন অধ্যাদেশ ১৯৬১ এর  অনুচ্ছেদ ৭ অনুযায়ী নোটিশ না পাঠালে তালাকদাতার ১০,০০০ টাকা জরিমানা অথবা ১ বছরের জেল অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হতে পারে। নোটিশ আপনি নিকাহ রেজিস্টার/কাজী, নোটারী অথবা আপনার উকিলের মাধ্যমে পাঠাতে পারেন। এলাকার চেয়ারম্যান অথবা কাউন্সিলর নোটিশ পাবার ৩০ দিনের মধ্যে একটি সালিশি পরিষদ গঠন করবে। আইন অনুযায়ী দুই পক্ষের এই সালিশি পরিষদে একসাথে বসতে হবে। তবে মানুষ খুব কমই এই সালিশি পরিষদে অংশগ্রহণ করে।  এই পরিষদে বসে তারা বিভিন্ন আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেয় তারা কেন একসাথে থাকবে না এবং আসলেই কি তাদের একসাথে থাকা সম্ভব হচ্ছে না। চেয়ারম্যান/ কাউন্সিলর যদি দেখে যে আসলেই তাদের আর একসাথে থাকা সম্ভব না সেক্ষেত্রে উনি সিদ্ধান্ত দিবেন যে ৯০ দিন পর তাদের ডিভোর্স কার্যকর হবে। যদি তাদের দুই জনের একজনও সালিশি পরিষদে না আসে তবে ধরে নেয়া হয় যে দুই জনই ডিভোর্সের পক্ষে। তখন নোটিশ পাঠানোর ৯০ দিন পর তাদের ডিভোর্স কার্যকর হয়ে যায়।

এই ৯০ দিন অপেক্ষাকে ইদ্দতকাল বলে।স্ত্রী যদি গর্ভাবস্থায় থাকে তবে যেটির সময় বেশি তার পরে তালাক কার্যকর হবে, অর্থাৎ যদি সন্তান ১০০ দিন পরে হয় তবে ১০০ দিন পর তালাক কার্যকর হবে কিন্তু যদি সন্তান ৮০ দিন পরে হয় তবে ৯০ দিন (নির্ধারিত সময়) পরেই তালাক কার্যকর হবে।  ডিভোর্স ঘোষণার ৯০ দিনের মধ্যে তালাকদাতা ডিভোর্স প্রত্যাহার করতে পারে। ৯০ দিন পর যদি তাদের মনে হয় ডিভোর্স নেয়াটা ঠিক হয়নি, একসাথে থাকতে চায় সেক্ষেত্রে তাদের পুনরায় বিয়ে করতে হবে।

ডিভোর্স-এর আগে স্বামীকে অবশ্যই পুরো দেনমোহর পরিশোধ করতে হবে যদি সে বিবাহের সময় পুরো দেনমোহর পরিষদ করে না থাকে, এটা স্ত্রীর অধিকার। ডিভোর্স কার্যকর হওয়ার পর তাদের রেজিস্ট্রারের নিকট ডিভোর্স সার্টিফিকেটের জন্য আবেদন করতে হবে এবং সেটি সংগ্রহ করতে হবে।

স্বামী তার স্ত্রীকে কোন কারণ দর্শানো ছাড়াই ডিভোর্স দিতে পারে। অনেকের আবার প্রশ্ন থাকতে পারে স্বামী যদি রাগের মাথায় তালাক দিলাম বলে ফেলে তখন কি হবে। আইন ও ইসলাম অনুযায়ী এই ডিভোর্স গ্রহণযোগ্য হবে না।

এইদিকে স্ত্রী কয়েকটি নির্ধারিত কারণে স্বামীকে ডিভোর্স দিতে পারে যা ডিভোর্স আইন, ১৮৬৯ এর ধারা ২ অনুচ্ছেদ দুই এ উল্লেখ রয়েছে। এছাড়া যদি স্বামী তার স্ত্রীকে বিয়ের কাবিনামায় অধিকার দিয়ে থাকে যে স্ত্রী তাকে তালাক দিতে পারবে তবেই আসলে স্ত্রী তার স্বামীকে নির্ধারিত কারণ ব্যাতিত ডিভোর্স দিতে পারবে। এই পদ্ধতিকে তালাক-এ-তৌহিদ বলে।

আমরা এই ব্লগটি বিভিন্ন ওয়েবসাইট ও আইনজীবীদের ব্লগের সাপেক্ষে লিখেছি, এজন্যে ভুল ক্রটি থাকতে পারে। এছাড়াও যেকোনো আইনের প্রয়োগ বিভিন্ন পরিস্থিতিতে বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে। সুতরাং আপনার ব্যক্তিগত জীবনের নির্দিষ্ট কোন পরিস্থিতিতে সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর আগে অবশ্যই আলেম অথবা আইনজীবীর সাথে যোগাযোগ করুন।

পরবর্তী পর্বে আমরা আলোচনা করবো বিবাহ বিচ্ছেদ এবং ইসলামে বিদ্যমান নিয়ম। যদি আমাদের এই ব্লগটি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তবে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন এবং শেয়ার করবেন।

Share on

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.