বিয়ের মাধ্যমে ব্যক্তিত্ব বিকশিত হয়

আমাদের সমাজে অনেক মানুষ আছেন যারা বিয়ের উপযুক্ত কিন্ত বিয়ে করছেন না। আর এটাকে তারা তেমন গুরুত্বও প্রদান করছেন না। আর বিয়ে না করে থাকাকেই নিজস্ব ব্যক্তিত্ব মনে করছেন। অথচ যারা বিয়ে করেন তারা নানান দিক দিয়ে নিজেদের ব্যক্তিত্ব প্রকাশের ও বিকাশের সুযোগ পান।

বিয়ের মাধ্যমে ব্যক্তিত্ব বিকশিত হয়

বিবাহিত পুরুষ বা নারী যেই হোক না কেন তার সমাজ, সংসার এমনকি রাষ্ট্রের প্রতি দায়িত্ব অনেক বেশি থাকে। কারণ সে সমাজের ও রাষ্ট্রের কার্যক্রম সম্পর্কে বেশি সচেতন থাকে। যেহেতু তার সন্তান থাকে বা সন্তান হওয়ার সম্ভাবনাও থাকে তাই আগত সন্তানের সুখ, শান্তি, উন্নতির জন্য নিজে যেমন চিন্তা করে ঠিক তেমনি সমাজে যেন ভাল পরিবেশ বজায় থাকে সে চিন্তাও করে অর্থাৎ বিবাহিত মানুষের চিন্তা ভাবনা একটু ব্যাপক হয়।

যেমন: আমাদের মহল্লায় একটি স্কুল দরকার, একটি হাসপাতাল দরকার, শিশুদের জন্য খেলার মাঠ দরকার, পার্ক দরকার, মসজিদ দরকার, মক্তব দরকার, বাজার দরকার, ভাল রাস্তা ঘাট দরকার ইত্যাদি বিষয়ে বিবাহিত লোকেরাই বেশি অগ্রণী ভুমিকা পালন করে কারণ তাদের চিন্তা ভাবনা বা লাভ ক্ষতি শুধু নিজেকে নিয়ে নয় বরং আগামী প্রজন্মকে নিয়েও হয়ে। একইভাবে নিজ মহল্লায় বা সমাজে যাতে ক্ষতিকর বা পরিবেশ খারাপের দিকে না যায় সেক্ষেত্রেও একজন বিবাহিত ব্যক্তির ভূমিকা অনেক বেশি থাকে।

নিজের স্বামী-স্ত্রীর প্রতি যেমন দায়িত্ব পালন করেন ঠিক তেমনি নিজের মা, বাবা ও শশুর-শাশুরির প্রতিও একজন বিবাহিত ছেলে বা মেয়ে দায়িত্ব একটু বেশিই পালন করে থাকে। আর বিবাহিতরা নিজ স্বার্থেই এসব ভাল কাজ করে থাকেন। কারণ তার সন্তান এগুলো লক্ষ্য করছে যে তার পিতা মাতা নিজ পিতা মাতার প্রতি যত্নশীল। এভাবে সমাজে, মহল্লায়, নিজ পরিবারের মধ্যে অবদান রাখার ফলে নতুন প্রজন্মের কাছে তারা সন্মানী ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত হন। নতুন প্রজন্ম বড়দেরকে তাদের ভাল কাজের অবদান স্বরুপ তাদেরকে শ্রদ্ধা করতে থাকে আর এভাবে বিবাহিত মানুষের মধ্যে ব্যক্তিত্ব গড়ে  উঠে।

আর যারা সময়মত বিয়ে করেনা তাদের মধ্যে প্রায়ই হতাশা এসে ধরা দেয়। কারণ তারা অনেক দিক দিয়েই বিবাহিত মানুষের মত নিজ পরিবারে বা সমাজে অবদান রাখবার সুযোগ পাননা।

এজন্য আমাদের ব্যক্তিত্বকে বিকাশের জন্য বিয়ে করতে হবে। দুনিয়াতে শান্তির পরিবেশ বাস্তবায়নে যেমন ভুমিকা রাখতে হবে পাশাপাশি নিজস্ব চিন্তা ভাবনা প্রকাশের মাধ্যমে নিজস্ব ব্যক্তিত্বকে ফুটিয়ে তুলতে হবে। আর নিজের ব্যক্তিত্বকে নিজ পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রে তুলে ধরতে বিয়ের বিকল্প নেই।

তাই আসুন সময় মত বিয়ে করি আর সমাজে, রাস্ট্রে এমনকি নিজ পরিবারে নিজের ব্যক্তিত্বকে ফুটিয়ে তুলি।

বিয়ের জন্য পাত্র/পাত্রী খুঁজছেন? তাহলে আজই biyeta.com এ একটি অ্যাকাউন্ট খুলুন।

Share on

2 thoughts on “বিয়ের মাধ্যমে ব্যক্তিত্ব বিকশিত হয়

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.